একটি মেয়ের স্বপ্ন – লিখেছেন মাকসুদা আইরিন

একটি মেয়ের স্বপ্ন – লিখেছেন মাকসুদা আইরিন

আজ আমায় ছেলে পক্ষ দেখতে আসবে। বাবা সকালে ঘুম থেকে উঠেই অনেক গুলো বাজার নিয়ে এসেছে। মা পুরো ঘর দোর ঝার মোছ করছেন। এ দৃশ্য আমার কাছে নতুন নয়। প্রায়ই এরকম হচ্ছে আমাদের ঘরে। প্রতিবারই ছেলে পক্ষ এসে আমাকে এসে দেখে খেয়ে দেয়ে চলে যায়। বলে পরে জানাবে আমাকে পছন্দ হয়েছে কিনা। কিন্তু সেই পর আর হয়না। অবশ্য যাবার আগে আমার হাতে ৫০০ বা ১০০০ টাকার নোট ধরিয়ে দিয়ে যায়। আমি টাকাটা বাবাকে দিয়ে দেই।তাতে…

Read More

ব্যাডলাক!!! কার রিদিতা না প্লাবনের?

ব্যাডলাক!!! কার রিদিতা না প্লাবনের?

রিদিতা আর প্লাবনের এক বছরের প্রেম। তারা দুজনেই চাকরি করে। রিদিতা র বাসায় অনেক কড়াকড়ি। বাবা মা কে সে খুব ভয় পায়। প্লাবনের সাহসেই সে বাসায় বলার জন্য নিজেকে প্রস্তুত করে – যে যত যাই হোক আজকে সে বলবেই তাদের সম্পর্কে র কথা! সন্ধ্যা ৭টায় রিদিতার বাবা তার মার সাথে অন্য ছেলের সাথে তার বিয়ে নিয়ে কথা বলছিলেন। রিদিতা কিছুক্ষন শোনার পর তার বাবাকে বলেই ফেলে তাদের সম্পর্কে র কথা। বাবা কিছুক্ষন গম্ভীর হয়ে থেকে…

Read More

একই মানুষের ঘরে বাইরের রুপ

একই মানুষের ঘরে বাইরের রুপ

এইচ এস সি র সময় টুশী র বাংলা স্যার কে বেশ লাগত। উনার মেয়ে টুশীর ব্যাচমেট। টুশীর বাবা নেই। টুশী ভাবে, সোহেলি কত ভাগ্যবতী। এরকম একজন বাবা পেয়েছে। বাংলা স্যারের ক্লাসে উনি এত্ত ফান করে পড়ান যে কখনও ই বোর লাগেনা কারুর। স্যারের ক্লাস করতে অন্য সেকশন থেকে স্টুডেন্ট রা এসে পড়ত। টুশির সোহেলির সাথে ভাল বন্ধুত্ব হয়। সোহেলি কে সে বলে যে তার বাবাকে তার বাবা ডাকতে ইচ্ছা করে। এত চমৎকার একজন মানুষ সোহেলি…

Read More

মে মাসের এক রাতে… মাকসুদা আইরিন ।

মে মাসের এক রাতে… মাকসুদা আইরিন ।

তখন আমরা থাকতাম চট্টগ্রামের বন্দর কলোনিতে। কলোনির প্রায় প্রতিটি বাসা একতলা বিশিষ্ট। যদিও এখন সে কলোনি গুলো ভেঙ্গে বহুতল বিশিষ্ট বাড়ি তৈরি করা হচ্ছে।বাসাগুলোর সামনের গেইট গুলো এমন যে বাইরে থেকে গেইটের ভিতর কেউ থাকলে তার শরীরের এক তৃতীয়াংশ দেখা যেত। ভিতর থেকেও সেইম। ২০০৭ সালের মে মাসের একটি রাত। অসম্ভব গরম আর গুমট আবহাওয়া ছিল।। আমি ৩ মাসের প্রেগন্যান্ট ছিলাম। গরমে আমার জীবন যায় যায় অবস্থা। সন্ধ্যার পর দেখলাম বাইরে হঠাৎ গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি…

Read More

ছোট একটা পারিবারিক এলোমেলো গল্প

ছোট একটা পারিবারিক এলোমেলো গল্প

একটা ছোট এলোমেলো গল্প — এক মেয়ে প্রথম প্রেগনেন্ট বিয়ের চার মাসের মাথায়। সে অনেক শুনেছিল, মেয়েদের প্রথম প্রেগনেন্সি তে নাকি রাজরানী র মত আদর পাওয়া যায়। সে খুব খুশি। কিন্তু মা র বাড়িতে তেমন কেউ নেই। বাবা খুব চুপচাপ। মা অন্তঃসত্বা মেয়ে কে দুই এক মাস থাকতেই লন্ডন গেলেন বোনের বাসায় । এদিকে সব রকম সম্পর্ক থাকা সত্বেও কোন রকম আদর ত দূরের কথা, কেউ জিজ্ঞেস ও করেনা খাইসো নাকি। না খেলে খাবা কিনা।…

Read More

ভালবাসি বাবা – বাবাকে নিয়ে লেখা কিছু মনের কথা

ভালবাসি বাবা – বাবাকে নিয়ে লেখা কিছু মনের কথা

বাবা খুব মনে পড়ে তোমাকে বাবা আমার না কি যেন হয়েছে , দেখনা আমি তোমার কাছে আসি না  কথা বলি না,,,দূরে দূরে থাকি,,,!!! বাবা আসলে সত্যি বলতে কি আমার এখন আর দুঃখবিলাস করতে ভালো লাগে না,,,,আমার মনে হয় যতক্ষণ আমি আমার দুঃখগুলোকে ভূলে থাকবো, না পাওয়াগুলোকে মনে করব না,,,ততক্ষণ আমি ভাল থাকব!!! এটা মনে হয় স্বার্থপরতা হয়ে যাচ্ছে তাই না ??? তবে তুমিও কি স্বার্থপর নও বাবা ,,,,তুমিও তো আমাদের একা করে চলে গেছো,,,, একবারও কি…

Read More

শরবত গুলা – আফগান গার্ল কেমন আছে এখন সেই সবুজ চোখের মেয়েটি ?

শরবত গুলা – আফগান গার্ল কেমন আছে এখন সেই সবুজ চোখের মেয়েটি ?

আফগান গার্ল শিরোনামে শরবত গুলার ওই ছবিটি তোলা হয় ১৯৮৪ সালে।  যুক্তরাষ্ট্রের প্রসিদ্ধ সাময়িকী ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের আলোকচিত্রী স্টিভ ম্যাককারি পেশোয়ারের এক শরণার্থী শিবিরের কাছ থেকে ১২ বছরের শরবত গুলার ছবিটি তোলেন। গুলা সেসময়ে শরণার্থীদের একটি স্কুলে পড়তেন। অনেক দিন পর ২০০২ সালে স্টিভ ম্যাককারি আবার খুঁজে পান তাঁকে। তিনি বলেছিলেন, শরবতের চোখের দৃষ্টি তখনো ছিল সেই আগের মতো তীক্ষ্ণ। মূলত এই ছবিটি ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক ম্যাগাজিনের ১৯৮৫ সালের জুনের সংখ্যায় প্রচ্ছদ হিসেবে ব্যবহার করার ফলে এটি বিশ্বব্যপী…

Read More

বই পড়ার স্মৃতি ও নিজাম আঙ্কেলের ভাতিজা ।

বই পড়ার স্মৃতি ও নিজাম আঙ্কেলের ভাতিজা ।

বই পড়া নিয়ে আমার অনেক স্মৃতি আছে যা বলে হয়ত শেষ করা যাবে না। আজ তেমনই একটি ঘটনা মনে পড়ায় তা লিখতে ইচ্ছা করলো। কয়েক বছর আগে আমি একটি জন্মদিন এর অনুষ্ঠান এ গিয়েছি, দেখলাম তেমন কাউকে চিনি না। তখন চোখ গেল বুক সেলফ এ রাখা বই এর উপর।দেখেই একটি বই নিয়ে পড়া শুরু করলাম। গভীর মনযোগ দিয়ে বই পড়ছি   এমন সময় একটি ছেলে এসে বলল, এক্সকিউজ মি, আপনার নাম মনিকা না? আমি বই…

Read More

মায়ের থেকে কেবলই দূর হয়ে যাচ্ছি

মায়ের থেকে কেবলই দূর হয়ে যাচ্ছি

কয়েকশো কোটি ভ্রুন রে পিছে ফেলে মায়ের জঠরে জায়গা নিশ্চিত করতে পারি, চারিদিকে ঘোর অন্ধকার থাকলেও সুখেই থাকি আমরা , ১০ টা মাস যেতে না যেতেই সহ্য হয় না আমাদের সুখে থাকলে ভুতে কিলায় আমার আমরা তখন করি হাত পা ছুড়াছুড়ি, কষ্ট কেমন হয় তা সেই মা একমাত্র জানে, কারু কপাল ভাল হলে নরমাল ডেলিভারি এখন যা দেখা যায় কিছু হারামি ডাক্তার মিলে আমাদের সেই নিরাপদ আশ্রয়টা ছুরি দিয়ে ফেড়ে বের করে আনে মাত্র কয়টা…

Read More

স্কুল পালিয়ে মধুমতি নদীতে শৈশবে চিংড়ী ধরে পুড়িয়ে খাওয়া গল্প

স্কুল পালিয়ে মধুমতি নদীতে শৈশবে চিংড়ী ধরে পুড়িয়ে খাওয়া গল্প

আমার ছেলেবেলার কোন একটি বৃহস্পতিবার ১৯৯২ আজ বৃহস্পতিবার হাফ স্কুল, তার মানে আজ থেকে দেড়দিন স্কুল বন্ধ, আমাদের প্রস্তুতি থাকত এক এক ছুটির দিন আলাদা, বৃহস্পতিবার মানেই অন্যরকম, ক্লাস বেশি হবে না আজ কিছুতেই। পলিতিন এর ভিতর কিছু হলুদ, লবন, গুড়া মরিচ আর তেল এক সাথে করে নিয়ে গেছি, কারন আজ ভিন্ন কিছু করতে হবে, স্কুল শুরু হবার পরই কানাকানি শুরু হয়ে গেছে , কি করব না করব , শেষমেষ আমার কথাই ঠিক হল ,…

Read More

শৈশবের রেপুটেশন উদ্ধার

শৈশবের রেপুটেশন উদ্ধার

ক্লাস ফোর এর পরীক্ষা দিয়ে ফাইভে ঊটছি বন্ধুদের সবাই, বানরামির চুড়ান্ত চর্চা চলে তখন । স্কুলে উপস্থিত বেশি হবার জন্য + খেলাধুলায় প্রায় সব পুরুস্কার গুলি আমাদের থাকে , কিন্তু, বেশি নাম্বার, আচার আচরণ, বিশেষ করে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতাগুলির ধারের কাছে যেতে পারি না, কোরআন তেলাওয়াত এ অন্যরা নিয়ে যায়, হামদ নাদ এ ভাল হয় নাই আগের বছর, আর মারামারির কেস তো আছেই, ক্লাস ফোরে এ পইড়া সিক্স, সেভেন এর পোলাপাইনের সাথে মারামারি করে রেপুটেশন তো…

Read More