Share with your friends
  •  
  •  
  •   
  •  

আবেগের ব্যবহার

নেতিবাচক দিক

প্রতিটি মানুষের মন নামক এমন কিছু আছে যা তাকে প্রতিনিয়ত আবেগী হতে বাধ্য করে। আবেগকে প্রশয় দিতে না চাইলেইও আবেগ কিন্তু ঠিক জায়গা করে নেয়। যতই কঠিন মন হোক না কেন, আবেগ তাকে দুর্বল করতেই পারে।এই আবেগের বসে হয়ে যায় নানা ধরনের ভুল,আবার এই আবেগের কারনে মনে আসে হতাশা,একাকিত্বের যন্ত্রনা,নিজেকে গুটিয়ে রাখা, অসহায়ত্ব প্রভৃতি। মাঝে মাঝে এই আবেগ এতটাই খারাপ রুপ ধারণ করে তা যেমন অপরের ক্ষতি করতে পারে তেমনি নিজের মূল্যবান জীবনটাও দিতে বাধ্য করে। তবুও কোনভাবেই আবেগ থেকে মানুষ মুক্ত পারে না।।

আবেগ এর ইতিবাচক দিক

আবেগের ইতিবাচক দিক হলো আবেগ আছে বলেই মানুষের মনে প্রেম,প্রীতি, ভালবাসা, শ্রদ্ধাবোধ,মানবতা এখনো জেগে আছে। আবেগহীন হলে এ পৃথিবীতে টিকে থাকা খুব মুশকিল হয়ে পড়তো,কেউ কারো সুখ দুঃখ অনুভব করতো না,কারো জন্য করো মন কাদঁতো না,স্নেহ মায়া কিছুই থাকতো না। শুধুই হিংসা বিদ্বেষে পরিপূর্ণ হতো সবার হৃদয়। তাই আবেগের অনুভূতি প্রয়োজন সবার মাঝে।

আবেগ এর  ব্যবহার

আমাদের ভুল হয় আবেগ এর  ব্যবহারে, আমরা নেতিবাচক দ্বারা প্রভাবিত হই বেশি,তাই সমস্যাও পড়তে হয়।
আপনার মনে খুব আবেগ, কিছুতেই তা থেকে মুক্তি মিলছে না, রাতের পর রাত জেগে জেগে হতাশায় কাটছে, ঘুমটাও হারাম। যত ইচ্ছা আবেগের অপচয় করেন সমস্যা নেই, কিন্তু মনে রাখবেন সকাল হলে যেন আপনার দৈনন্দিন রুটিন ঠিক মতো থাকে।তাতে কোন ক্ষতি নেই। কিন্তু আবেগ যদি আপনার রাতটার সাথে সাথে দিনটাও নষ্ট করে তাহলে জীবন নষ্ট হতে বেশি সময় লাগবে না।

আবেগ হলো এমন ক্ষণস্হায়ী, আজ যা আপনাকে নিঃশেষ করে দিচ্ছে কাল বাদে পরশু তা মনে পড়লেই আপনার হাসি পাবে, মনে মনে বলবেন কি না বোকা ছিলাম আমি।যদি সময়গুলো কাজে লাগাতে পারতাম।এই ধরনের চিন্তা যাতে করতে না হয়, সেজন্য আবেগের যথাযত ব্যবহার করতে শিখুন।

লিখেছেন মারজিনা শিবলী